1. editor@dailybogratimes.com : dailybogratimes. :
ধানের নায্য দাম না পাওয়ায় মুখে হাসি নেই আদমদীঘির কৃষকের » Daily Bogra Times
Logo সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০১:৫৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
প্রথম সিনেমা নিয়ে ঝামেলায় আমিরপুত্র কাতারে তৃতীয় দফায় জাতিসংঘের বৈঠকে অংশ নেবে আফগান সরকার বায়তুল মোকাররমে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত রাজশাহীতে ঈদুল আজহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত কোন দেশে কীভাবে পালিত হয় ঈদুল আজহা লালমনিরহাটে বাস-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে স্বামী -স্ত্রী নিহত ঈদের দিন নেপালকে হারিয়ে সুপার ৮ এ বাংলাদেশ বগুড়ায় ভুয়া ডিবি পুলিশ গ্রেফতার বুবলী দিচ্ছেন গরু কোরবানি, অপু ছাগল ঈদের দিন ঢাকাসহ দেশের যেসব অঞ্চলে বৃষ্টির সম্ভাবনা  সেন্টমার্টিন নিয়ে গুজব ছড়ানো হচ্ছে, বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ: আইএসপিআর কোরবানির আগে ট্রিপল সেঞ্চুরি কাঁচা মরিচের, শসা মারলো সেঞ্চুরি পাবনায় কোরবানির গরু আনতে গিয়ে পদ্মায় ডুবে প্রাণ গেল কৃষকের ইদের ছুটিতে ঘুরে আসতে পারেন নৈসর্গিক পরিবেশের সরোবর পার্ক এন্ড রিসোর্টে ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ‌রুহুল আমিন সাইফুল

ধানের নায্য দাম না পাওয়ায় মুখে হাসি নেই আদমদীঘির কৃষকের

রবিউল ইসলাম, রবিন, আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধিঃ-
  • শুক্রবার, ৩১ মে, ২০২৪
  • ১৩ বার পঠিত
ধানের নায্য দাম না পাওয়ায় মুখে হাসি নেই আদমদীঘির কৃষকের
print news

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ শষ্যভান্ডার হিসেবে পরিচিত বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা।
উপজেলার বেশিরভাগ জমিই তিন ফসলি এবং উন্নত মানের এবং ফসল উপযোগী মাটি।
গত ১ মাস থেকে বোরো ধানের কাটা মাড়াই চলছে। ফলে উপজেলার কৃষক-কৃষানীরা
এখন ব্যস্ত সময় পার করছে। এবারে বোরো ধানের ফলন ভালো হয়েছে। আবহাওয়া বিপর্যয়
হওয়ার আগে কৃষকেরা প্রায় সব ধান কাটা ও মাড়াই শেষ করেছে। বর্তমানে ধান সংরক্ষণ
ও খড় সংরক্ষণ করছে তারা। হাটে ধান বিক্রিও করছে কোন কোন কৃষক।

তবে ধান ওঠার পর
থেকে ধানের দামও উঠা নামা করছে। সরকার বেঁধে দেওয়া দামের চেয়ে কম দামে মোটা
ধান বিক্রি হচ্ছে। এতে করে কৃষকের মন ভার। লোকসানের আশঙ্কা করছেন তারা। কিছুদিন
পর আউশের আবাদ। বর্তমানে বোরো আবাদ থেকে লাভবান হওয়া গেলে সামনের ঈদেও খরচ
আর আউশের আবাদটা ঠিকমতো করা যাবে।

কৃষকরা বলছেন, সরকার নির্ধরিত মূল্যের চেয়ে খোলাবাজারে অনেক কম দামে ধান বিক্রি
করতে হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা ধানের দাম পেলেও কৃষকেরা নায্য দাম পাচ্ছে না। এতে ধান
লাগাতে যে খরচ হয়েছে তা উঠবে না। সামনে আসন্ন ঈদুল ফিতর। এই ধান বিক্রি করেই
তো কৃষকেরা ঈদের খরচ যোগাবে। তাই উপজেলার কৃষকরা বাজার মনিটরিংয়ের দাবী
তুলছে। উপজেলার সান্তাহার ইউনিয়নের সান্দিড়া গ্রামের কৃষক রমজান আলী বলেন,
আমরা ফসলের নায্য দাম চাই। এটা আমাদের প্রাণের দাবী।

কিন্তু কৃষক হয়ে আমরা তো
মিছিল, মিটিং করতে পারি না। সরকার মনিটরিং অন্তত বাজার করুæক।
কৃষকেরা বলছেন, ধান রোপণ থেকে শুরু করে মাড়াই পর্যন্ত প্রতি বিঘা প্রতি খরচ
পড়েছে ১৫-১৬ হাজার টাকা। বর্তমানে ধানের দর মোটা হাইব্রিড ধান ৯০০ টাকা
থেকে ১০০০ টাকা। তাহলে নায্য দাম হলো কেমন করে? সরকার মোটা জাতের ধানের দাম
নির্ধারণ করে দিয়েছে ১ হাজার ২৮০ টাকা। ধানের দাম ১ হাজার ৮০০ টাকা হলে
কৃষকরে জন্য সুবিধা।

উপজেলা চালকল মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক আহম্মেদ স্বপন জানান, উপজেলার
কৃষকেরা হাটে যে ধান বিক্রির জন্য নিয়ে আসে তা কিছুটা ভেজা থাকে।ধুলাবালিও
থাকে। ভেজা ধান শুকানোর পর ওজনে কমে যায়। আবার তা সংরক্ষণ করাও কঠিন। সরকার মোটা
ধান ১ হাজার ২৮০ টাকা মন ঘোষনা করেছে। আমরা বাজার থেকে ধান কেনার পর দেখা
যায়, সরকারি বাজার দরের কাছাকাছি চলে যায়। বাধ্য হয়ে কিছুটা কমে কিনতে হয়।
আদমদীঘি কৃষি অফিসার মিঠু চন্দ্র অধিকারী জানান, এ বছর উপজেলায় ১২ হাজার
২৮০ হেক্টর বোরো আবাদ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় আবাদ ভাল হয়েছে। আরো
কিছুদিন পর কৃষকরো ধানের ভাল দাম পাবে বলে আশা করছি।

এনাম হক / ডেইলি বগুড়া টাইমস

আরো খবর
© All rights reserved by Daily Bogra Times  © 2023
Theme Customized BY LatestNews