1. editor@dailybogratimes.com : dailybogratimes. :
বগুড়ায় ব্যাংকের দেড় কোটি টাকা আত্মসাৎ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী গ্রেফতার » Daily Bogra Times বগুড়া টাইমস
Logo বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:২৯ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
পাসপোর্ট তালিকায় বাংলাদেশ ৯৭তম, শীর্ষে সিঙ্গাপুর যুক্তরাজ্যে আপসানাসহ লেবার পার্টির ৭ এমপি বরখাস্ত সান্তাহারে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ও জীবনিস্থাপন ইন্টারনেটহীন সময়ে অনেকেই বই পড়ায় ফিরে গিয়েছে : মোশাররফ করিম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরিবেশ এখনো হয়নি: শিক্ষামন্ত্রী কম যাত্রী নিয়েই রাজধানী থেকে ছাড়ছে দূরপাল্লার বাস কয়েকজন শিক্ষার্থী এখনো নিখোঁজ : জিএম কাদের রাতেই চালু ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট, রোববারের মধ্যে মোবাইল ডাটা গুলিবিদ্ধ তানজিন তিশার সহকারী আলামিন ৩১ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত পিএসসির সব পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ প্রাথমিক বিদ্যালয় নবরুর লাইফস্টাইল দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে : সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান বাংলাদেশে বাইরে বের না হতে ভারতীয় নাগরিকদের সতর্কতা জারি কমপ্লিট শাটডাউনে সুন্দরগঞ্জে সড়কে শিক্ষার্থীরা

বগুড়ায় ব্যাংকের দেড় কোটি টাকা আত্মসাৎ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী গ্রেফতার

বগুড়া প্রতিনিধিঃ-
  • মঙ্গলবার, ৯ জুলাই, ২০২৪
  • ৭৩ বার পঠিত
বগুড়ায় ব্যাংকের দেড় কোটি টাকা আত্মসাৎ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী গ্রেফতার
print news

বগুড়ার আদমদীঘি চাঁপাপুর বাজারের ইসলামী ব্যাংক পিএলসি এজেন্ট ব্যাংক থেকে দেড় কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনার মূল হোতা ওই ব্যাংকের ক্যাশিয়ার মো. সুজন রহমানকে (২৭) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১২ বগুড়া ও র‌্যাব-৪ সাভার

গতকাল সোমবার রাত ৮টার দিকে এক যৌথ অভিযানে ঢাকার ধামরাই উপজেলার তালতলা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সুজন বগুড়ার কাহালু উপজেলার এনামুল হকের ছেলে। 

গত ২৩ মে মার্জিয়া বেগম নামের এক গ্রাহক ওই ব্যাংকে তার জমাকৃত টাকা উত্তোলন করতে এসে এ্যাকউন্টে টাকা কম দেখতে পেলে সুজনের টাকা আত্মসাতের ঘটনা সামনে আসে। ওই দিন সুজন ব্যাংকে না আসলে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিনি বাসায় তালা লাগিয়ে লাপাত্তা হয়েছেন। পরবর্তীতে এই ঘটনায় ওই ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক কাজী মিজানুর রহমান একটি মামলা দায়ের করেন।

গ্রেপ্তারকৃত সুজন র‌্যাব’র জিজ্ঞাসাবাদে জানায়, উল্লেখিত এজেন্ট ব্যাংকিং শাখার আউটলেটটি তার বড় চাচার নামে লাইসেন্সকৃত। তার বড় চাচা বিভিন্নভাবে আর্থিক সংকটে পড়লে তারা মিলে পরিকল্পনা করে গ্রাহকের টাকা জমা নেয়ার সময় রিসিপ্ট না দিয়ে গ্রাহককে ম্যানেজ করবে এবং ওই টাকা গ্রাহকের একাউন্টে জমা না করে তারা নিজেরা ভাগ করে নিবে। অপরদিকে গ্রাহকের ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়ে তাদের একাউন্টে রাখা টাকা উত্তোলনের সময় একাধিকবার ফিঙ্গার প্রিন্ট নিয়ে বেশি টাকা উত্তোলন করে তা ভাগ করে নিতো। এভাবে এক বছর ধরে ধাপে ধাপে তারা প্রায় দেড় কোটি টাকা আত্মসাৎ করে।

এনাম হক / ডেইলি বগুড়া টাইমস

আরো খবর
© All rights reserved by Daily Bogra Times  © 2023
Theme Customized BY LatestNews