1. editor@dailybogratimes.com : dailybogratimes. :
সরকারি চাকরিতে কোটা রাখা মুক্তিযুদ্ধের মূল উদ্দেশ্যের পরিপন্থী » Daily Bogra Times বগুড়া টাইমস
Logo বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
পাসপোর্ট তালিকায় বাংলাদেশ ৯৭তম, শীর্ষে সিঙ্গাপুর যুক্তরাজ্যে আপসানাসহ লেবার পার্টির ৭ এমপি বরখাস্ত সান্তাহারে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ও জীবনিস্থাপন ইন্টারনেটহীন সময়ে অনেকেই বই পড়ায় ফিরে গিয়েছে : মোশাররফ করিম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরিবেশ এখনো হয়নি: শিক্ষামন্ত্রী কম যাত্রী নিয়েই রাজধানী থেকে ছাড়ছে দূরপাল্লার বাস কয়েকজন শিক্ষার্থী এখনো নিখোঁজ : জিএম কাদের রাতেই চালু ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট, রোববারের মধ্যে মোবাইল ডাটা গুলিবিদ্ধ তানজিন তিশার সহকারী আলামিন ৩১ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত পিএসসির সব পরীক্ষা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ প্রাথমিক বিদ্যালয় নবরুর লাইফস্টাইল দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে : সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান বাংলাদেশে বাইরে বের না হতে ভারতীয় নাগরিকদের সতর্কতা জারি কমপ্লিট শাটডাউনে সুন্দরগঞ্জে সড়কে শিক্ষার্থীরা

সরকারি চাকরিতে কোটা রাখা মুক্তিযুদ্ধের মূল উদ্দেশ্যের পরিপন্থী

নিউজ ডেস্কঃ-
  • বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই, ২০২৪
  • ১৩ বার পঠিত
সরকারি চাকরিতে কোটা রাখা মুক্তিযুদ্ধের মূল উদ্দেশ্যের পরিপন্থী
print news

যেকোনো পরিস্থিতিতে দেশের মানুষের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি কখনোই মঙ্গল বয়ে আনে না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা গোলাম মোহাম্মদ ( জিএম) কাদের।

তিনি বলেছেন, সরকারি চাকরিতে কোটা ইস্যুতে স্বাধীনতার চেতনার নামে স্বাধীনতার মূল উদ্দেশ্য বৈষম্যমুক্ত ও ন্যায়ভিত্তিক সমাজ গঠন ধ্বংস করা হচ্ছে।

বুধবার (৩ জুলাই) সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদে বাজেট অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

জিএম কাদের বলেন, এ কথা যেন আমরা ভুলে না যাই যে, ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় এদেশের মানুষ বৈষম্যের বিরুদ্ধে সংগ্রাম আন্দোলনে জয়লাভের জন্য যেকোনো ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত। স্বাধীনতাযুদ্ধে আমাদের মূল অর্জন সংবিধান, সেখানে সুযোগ-সুবিধাদির ক্ষেত্রে সাম্যের কথা বলা হয়েছে। আমাদের শহীদ মিনার বৈষম্য থেকে মুক্তি সংগ্রামে আত্মত্যাগের প্রতীক।

তিনি বলেন, ২০১৮ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় এবং চতুর্থ শ্রেণিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে ৫৬ শতাংশ কোটা ছিল। যেখানে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা, ১০ শতাংশ নারী, ১০ শতাংশ অনগ্রসর জেলার বাসিন্দাদের জন্য, ৫ শতাংশ ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর জন্য, ১ শতাংশ প্রতিবন্ধীদের জন্য সংরক্ষিত। বাকি ৪৪ শতাংশ মেধায় নিয়োগ দেওয়া হতো।

সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ২০২১ সালে সেই পরিপত্রে মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের অংশটিকে চ্যালেঞ্জ করে কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান উচ্চ আদালতে রিট করেন। ২০২৪ সালের ৫ জুন রিটের রায় প্রকাশ করেন আদালত। সেখানে মন্ত্রণালয় কর্তৃক পরিপত্রের মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সংরক্ষিত অংশটির বাতিলকে ‘অবৈধ’ ঘোষণা করেন আদালত। ফলে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে চাকরিপ্রত্যাশী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা সরকারের জারি করা পরিপত্র পুনর্বহালের দাবিতে পুনরায় মাঠে নামে।

জিএম কাদের বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষাখাতে বাজেটে যে বরাদ্দ রাখা হয় তার সিংহভাগ ব্যয় হয় অবকাঠামো উন্নয়নে। শিক্ষার উন্নতি মানে শিক্ষার মানের উন্নতি। যে কারণে অবকাঠামো ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি করা হয়। শিক্ষার উন্নয়ন বা মানুষকে শিক্ষিত করে গড়ে তোলার মূল কারিগর হল শিক্ষক। ফলে অবকাঠামোর চেয়েও মানসম্মত শিক্ষক নেওয়া ও তৈরি করা আবশ্যক মনে করি।

তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক সব ক্ষেত্রেই মানসম্মত শিক্ষকের অভাব। তার কারণ, প্রাথমিক পর্যায় থেকে শুরু করে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত শিক্ষকতা পেশায় খুব ভালো ছাত্রদের আকর্ষণ করার মতো সুযোগ-সুবিধা নেই। মেধারী ছাত্ররা শিক্ষকতা পেশায় এলেও সুযোগ-সুবিধা কম থাকায় পরবর্তীসময়ে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছে। পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা ও সামাজিক মর্যাদার ব্যবস্থা থাকলে এমনটি হতো না।

এনাম হক / ডেইলি বগুড়া টাইমস

আরো খবর
© All rights reserved by Daily Bogra Times  © 2023
Theme Customized BY LatestNews